28 May 2017 , Sunday
Bangla Font Download
সংবাদ শিরোনামঃ

You Are Here: Home » আইন ও অপরাধ » দুর্নীতির গল্পকারদের খুঁজতে হাইকোর্টের রুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : পদ্মা সেতু প্রকল্প নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টি এবং ষড়যন্ত্রকারীদের খোঁজে বের করতে তদন্ত কমিশন গঠনে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

বুধবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক এবং বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এ রুল জারি করেন।

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, আইন সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, যোগাযোগ সচিব, পুলিশ মহাপরিদর্শক এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যানকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এছাড়া আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী এই তদন্ত কমিটি গঠনে কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, আগামী ৩০ দিনের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে প্রতিবেদন আকারে তা দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

‘ইউনূসের বিচার দাবি, বিশ্বব্যাংক ও টিআইবি’র ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান’ শিরোনামে ১৪ ফেব্রুয়ারি দৈনিক ইনকিলাবে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সেই প্রতিবেদন আমলে নিয়ে বুধবার হাইকোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এই রুল জারি করেন।

পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়, দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পদ্মাসেতু নির্মাণে অর্থায়নের সিদ্ধান্ত থেকে বিশ্বব্যাংকের সরে যাওয়ার ঘটনা গোটা বিশ্বে তোলপাড় সৃষ্টি করে। আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলোতে ওই ঘটনা ফলাও করে প্রচার করায় বাংলাদেশ এবং বর্তমান সরকারের ভাবমর্যাদা ক্ষুণ্ন হয়।

সাড়ে তিন বছর আগের ওই ঘটনার পর বিশ্বব্যাংকের পাশাপাশি দেশি-বিদেশি কিছু ব্যক্তিত্বের দৌড়ঝাপ, আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের ক্রিয়াকর্ম ও মিডিয়ার অতি উৎসাহ পদ্মা সেতু ইস্যুতে সরকারতে বিপাকে ফেলে দেয়। যা ছিল সরকারের জন্য চরম অবমাননাকর।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ়তায় নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। পদ্মাসেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন থেকে সরে যাওয়ার কারণ পর্দার আড়ালে নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস কলকাঠি নাড়ছেন বলে মনে করে সরকার। কানাডার আদালত পদ্মা সেতু দুর্নীতির মামলা খারিজ করে দেয়ার পর সবর হয়ে উঠেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও তাদের সমমনা দলগুলো।

তারা এখন মনে করছেন, ওই সময় পদ্মা সেতু ইস্যুতে দুর্নীতির মিথ্যা অভিযোগ তুলে বাংলাদেশের সরকারের ভাবমর্যাদা নষ্ট করায় ড. ইউনূসকে বিচারের মুখোমুখি করা উচিত। তাছাড়া জার্মানির অর্থে পরিচালিত দুর্নীতি বিরোধী আন্তর্জাতিক সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সরকার দলের নেতারা।

তাদের দাবি দেশের যারা পদ্মসেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র করেছে এবং বিশ্বব্যাংকের পক্ষ নিয়ে কথা বলেছেন তাদের সবাইকে জাতির কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে। পদ্মা সেতু নির্মাণে বিলম্ব হওয়ায় যে অধিক অর্থ ব্যয় হচ্ছে সে ক্ষতিপূরণ বিশ্বব্যাংককে দিতে হবে। প্রয়োজনে বিশ্বব্যাংকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করারও দাবি জানান তারা।

Use Facebook to Comment on this Post

Leave a Reply

উপদেষ্টা: মাসুদ রানা, কাজী আকরাম হোসেন ও খন্দকার সাঈদ আহমেদ রুমী
প্রকাশক: রোকেয়া চৌধুরী বেবী, সম্পাদক: রফিক আহমেদ (মুফদি), বিশেষ প্রতিনিধি: মনিরুল ইসলাম, মোস্তাক হোসেন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: জাকির হোসেন, প্রধান বার্তা সম্পাদক: মো. মহসিন হোসেন, চীফ রিপোর্টার: জুটন চৌধুরী
যোগাযোগ: ২৭৮ পশ্চিম রামপুরা ঢাকা, নিউজ ও কমার্শিয়াল উইং, মৌচাক টাওয়ার, রুম ১২০৪, মেইল: monirjjd@yahoo.com, Mob: 01819067529

Site Hosted By: WWW.LOCALiT.COM.BD