26 September 2017 , Tuesday
Bangla Font Download

You Are Here: Home » রাজনীতি, শীর্ষ দশ » প্রহসনের বিচার বিএনপি চায় না : মির্জা ফখরুল

ঢাকা : খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চান না সেই জন্য ডিসেম্বরে কর্মসূচি দিয়েছেন-প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের জবাবে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আমরা চাই। কিন্তু ন্যায় বিচার চাই। বিচারের নামে প্রহসন চাই না। যারা মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে তাদের বিচার আমরা চাই। কিন্তু রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে রাজনৈতিক দল নির্মূলের ষড়যন্ত্র কোনোভাবে সমর্থন করতে পারি না।

বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে নব্বইয়ের ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের উদ্যোগে গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে এক আলোচনায় একথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, পদ্মা সেতু দুর্নীতির খবর যখন প্রকাশিত হলো তখন প্রধানমন্ত্রী বললেন, পদ্মা সেতুতে কোনো দুর্নীতি হয়নি। এরপর বিশ্বব্যাংক যখন চুক্তি বাতিল করে দিল তখন বাধ্য হয়ে দুদক আবার তদন্ত করলো। এখন শোনা যাচ্ছে এর সঙ্গে দশজন জড়িত।

এই একটি কারণেই সরকারের পদত্যাগ করা উচিত দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, তারা বলেছিলেন পদ্মা সেতুতে দুর্নীতি হয়নি। আবুল হোসেন দুর্নীতি করেননি। তিনি দেশপ্রেমিক। এখন দুদক বলছে ডালমে কুছ কালা হ্যায়।

দুদকের চেয়ারম্যানের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ডাল মে কালা হ্যায় আপনার মধ্যে। ডালমে কালা হ্যায় দুদকের মধ্যে। যারা বলেছিলেন আবুল হোসেন দুর্নীতিমুক্ত।

তিনি অভিযোগ করেন, আবুল হোসেন, মসিউর রহমানরা সরকারের প্রধান ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ বলেই দুদক তাদের সার্টিফিকেট দিয়েছিল। তিনি বলেন, আরো অভিযোগ উঠেছে-প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ আত্মীয় স্বজনরা পদ্মা সেতুর দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত।

মির্জা ফখরুল বলেন, আবুল হোসেনকে বাদ দিয়ে দুদক মামলা করতে চেয়েছিল। কিন্তু বিশ্বব্যাংক তা মানেনি। তারা বলেছে, যিনি দুর্নীতির মূলহোতা তাকে বাদ দিয়ে মামলা হতে পারে না। তা নিয়ে আজও বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে দুদকের বৈঠক চলছে। আমরা আশা করবো শেষ পর্যন্ত আবুল হোসেনকে মামলায় ঢোকানো হবে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ভিওআইপির কারণে প্রতিদিন দেশ থেকে ২৯ কোটি টাকা দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে। অর্থাৎ মাসে ৯০০ কোটি টাকা দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে। কুইক রেন্টাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের নামে হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করেছে। শেয়ার বাজার থেকে এক লাখ কোটি টাকা লুটে নিয়েছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। সরকার আকণ্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত ।

মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার ওয়াদা করেছিল দেশকে গণতান্ত্রিক আবহের মধ্যে নিয়ে যাবে। কিন্তু তারা দেশে এখন এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে, মানুষ আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। তারা যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তার একটিও পূরণ করেনি।

তিনি বলেন, নির্দলীয় সরকারব্যবস্থা বাতিল করার বিষয়টি তাদের নির্বাচনী মেনুফেস্টোতে ছিল না। কোনো রাজনৈতিক দলের দাবিও ছিল না। জোর করে তারা সংবিধান সংশোধন করেছে। কারণ তারা জানে যদি নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হয়; তাহলে তাদের জামানত থাকবে না।

তিনি বলেন, জনগণের দাবি এই সরকার সহজে মেনে নেবে না। দুর্বার আন্দোলনের মাধ্যমে আদায় করে নিতে হবে। নব্বইয়ের ছাত্রনেতারা যেভাবে আন্দোলন করে এরশাদের পতন ঘটিয়েছিলেন; আগামীদিনেও সেরকম আন্দোলন করতে হবে।

দেশের মানুষ এই সরকারকে আর সময় দিতে চায় না দাবি করে তিনি বলেন, আন্দোলনের অংশ হিসেবে ৯ ডিসেম্বর সারা দেশে রাজপথ অবরোধ কর্মসূচি রয়েছে। এই কর্মসূচি হবে শান্তিপূর্ণ। সরকার যদি কোনো উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির সৃষ্টি করে তার দায় তাদেরকেই নিতে হবে।

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও ডাকসুর সাবেক ভিপি আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন হাবিবুর রহমান হাবিব, নাজিম উদ্দিন আলম, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, খন্দকার লুৎফর রহমান, কামরুজ্জামান রতন, মীর সরফত আলী সপু প্রমুখ।

Use Facebook to Comment on this Post

Leave a Reply

উপদেষ্টা : মাসুদ রানা, কাজী আকরাম হোসেন, খন্দকার সাঈদ আহমেদ, প্রকাশক : রোকেয়া চৌধুরী বেবী, সম্পাদক : রফিক আহমেদ মুফদি, প্রধান বার্তা সম্পাদক : মহসিন হোসেন, বিশেষ প্রতিনিধি : মোস্তাক হোসেন, মনিরুল ইসলাম, চিফ রিপোর্টার: জুটন চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : জাকির হোসেন। যোগাযোগ: ২৭৮, পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯। বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : রুম নম্বর ১২০৪, মৌচাক টাওয়ার, মালিবাগ মোড়, ঢাকা। মোবাইল : ০১৮১৯-০৬৭৫২৯, ০১৭১১-৭৮৩৮৬৮, ই-মেইল: monirjjd@yahoo.com, mohsindesh@gmail.com

Site Hosted By: WWW.LOCALiT.COM.BD