January 24, 2021, 10:06 am

লড়াই করে দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হবে: সেলিমা রহমান

লড়াই করে দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হবে: সেলিমা রহমান

যতদিন বিএনপির একজন নেতাকর্মী থাকবে, ততদিন পর্যন্ত গণতন্ত্রের লড়াই চলবে। লড়াই করেই এ দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হবে।

শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান এ কথা বলেছেন।

শহীদ ডা. শামসুল আলম খান মিলনের ৩০তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে এই সভার আয়োজন করা হয়।

সেলিমা রহমান বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় একটি পরিবার হল শহীদ জিয়ার পরিবার। শহীদ জিয়া এ দেশের মুক্তিযুদ্ধে মাঠে থেকে যুদ্ধ করেছেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে আপসহীন নেতৃত্ব দিয়েছেন। শহীদ জিয়ার পরিবার গণতন্ত্রের প্রতিক।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ছাত্র সমাজ কোনো অন্যায় সহ্য করে না। বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় ছাত্র সমাজকে শহীদ শামসুল আলম মিলনের ত্যাগ থেকে শিক্ষা নিয়ে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। ছাত্র ও যুব সমাজ দেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে।

সেলিমা রহমান বলেন, যখনই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে তখনই আসে দুঃশাসন এবং দুর্ভিক্ষ। আজকে আপনারা দেখতে পাচ্ছেন দুঃশাসন ও দুর্ভিক্ষে বাংলাদেশ অচল হয়ে গেছে। দুর্ভিক্ষ আমাদের দরজায় কড়া নাড়ছে। দ্রব্যমূল্য আজকে আকাশছোঁয়া, সাধারণ মানুষ আজকে খেতে পারছে না, হাজার হাজার যুবক আজকে বেকার। তারপরও তারা (সরকার) নিশ্চিন্তে ঘুমাচ্ছে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিস্তার ঠেকাতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, নো টেস্ট নো করোনা- এই বলে বাংলাদেশের মানুষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে। মানুষ অসহায়ের মতো ঘুরে বেড়িয়েছে, হাসপাতালে কোনো চিকিৎসা নেই, হাসপাতালে কোনো বেড নেই, মানুষের দাফনের কোনো ব্যবস্থা নেই। মানুষ অসহায়ের মতো রাস্তায় মরেছে। করোনাকে তারা (সরকার) দুর্নীতির বাণিজ্য হিসেবে নিয়েছিল। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে শেষ করে দিয়ে আজকে বাংলাদেশের মানুষকে অসহায় করে দিয়েছে। তাই আজকে সময় এসেছে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন যে আপসহীন নেত্রী এ ব্যাপারে কোনো দ্বিমত পোষণ করা যাবে না। তিনি যে বাসায় গেছেন, সেটাও কারাগার। কারাগারে যেমন বিধিনিষেধ, বাসায়ও তেমন। তিনি আপস করে বাসায় যাননি। তার পরিবার কোনো আবেদনও করেনি। তার চিকিৎসার জন্য পরিবার আবেদন করেছে। তিনি বলেন, যদি জেলখানায় খালেদা জিয়ার মৃত্যু হয়, তবে দেশ ও জাতি এমন জঘন্য অপরাধ মেনে নেবে না।

সভার সভাপতি বিএনপি চেয়াপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান বলেন, আমরা বলতে চাই- আওয়ামী লীগ সরকার ভোট ডাকাতির সরকার, অবৈধ সরকার, মিডনাইটের সরকার। তাদের কোনো বৈধতা নেই। তাদের হটিয়ে জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এই অবৈধ সরকারকে হটিয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে হবে।

সাবেক ছাত্র নেতা আমিরুল ইসলাম আলিমের পরিচালনায় আলোচনা সভায় আসাদুজ্জামান রিপন, হাবিবুর রহমান হাবিব, খায়রুল কবির খোকন, জহির উদ্দিন স্বপন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, সাইফুদ্দিন মানিক, খন্দকার লুতফর রহমান, আসাদুর রহমান খান, শিরিন সুলতানাসহ ছাত্রদলের নেতারা বক্তব্য দেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © deshnews24
Hosted By LOCAL IT